প্রকাশের সময়: ১:৫৬ অপরাহ্ণ | রবিবার, ডিসেম্বর ১৭, ২০১৭
Close [X]

বরুড়ায় ৪৬ তম বিজয় দিবস উদযাপিত

রিয়াজ উদ্দিন রানাঃ
গতকাল শনিবার কুমিল্লার বরুড়ায় যথাযোগ্য মর্যাদায় উপজেলা প্রশাসনের বিভিন্ন আয়োজনের মাধ্যমে ৪৬ তম মহান বিজয় দিবস পালিত হয়েছে। সকাল থেকেই বরুড়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্প স্তবক অর্পনের মাধ্যমে শুরু হয়। বরুড়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, স্কুল, কলেজ, উপজেলা প্রেস কাব, বাজার সমিতি, পরিবেসক সমিতিসহ বিভিন্ন সংস্থা পুষ্প স্তবক অর্পনের করেন। এদিকে সরকারি দল আওয়ামীলীগ তিন ভাগে বিভক্ত হয়ে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান। বিএনপি প্রতিবারের ন্যায় এবারও একত্রিত হয়ে বরুড়া কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্প স্তবক অর্পণ করেন।

 

এদিকে দেখা যায়, ৪৬ তম মহান বিজয় দিবসে জাতীয় পার্টির উদ্যোগে সবচেয়ে বিশাল র্যালী ও শোডাউন নিয়ে শহীদ মিনারে আসে। কুমিল্লা ০৮ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক নুরুল ইসলাম মিলনের পে উপজেলা জাতীয় পার্টির উদ্যোগে উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রোটাঃ কামাল হোসেনের নেতৃত্বে বরুড়ায় স্মরণ কালের বিজয় র্যালী অনুষ্ঠিত হয়। র্যালীটি বরুড়া সুন্নিয়া কামিল মাদ্রাসা থেকে শুরু করে প্রায় আট সহস্রাধিক নেতাকর্মী নিয়ে উপজেলা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ফুলেল শ্রদ্ধা জানান। র্যালীতে উপজেলা, পৌরসভা ও ইউনিয়নের জাতীয় পার্টির বিভিন্ন সংগঠন অংশ নেয়। উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রোটাঃ কামাল হোসেনের নেতৃত্বে র্যালীতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলার জাতীয় পার্টির সমন্বয়ক আবু হানিফ, পৌরসভা জাতীয় পার্টির ্র সাধারণ সম্পাদক কামাল হোসেন মীর, উপজেলা সাংগঠনিক সম্পাদক আক্তার হোসেন ভুঁইয়া, পৌরসভা জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুজ্জামান ভুঁইয়া, শাকপুর ইউপি চেয়ারম্যান মমতাজ উদ্দিন, ভবানীপুর ইউনিয়নের জসিম উদ্দিন কিরণ, নজরুল ইসলাম, খোশবাস ইউনিয়নের কেফায়েত উল্লাহ প্রমুখ।
যুব সংহতির দেলোয়ার হোসেন মাষ্টার, ইব্রাহিম মিয়াজী, মাসুদ, নজরুল, আশিষ সুর চৌধুরী, জিলানী, মাহফুজুর রহমান, সাংবাদিক ওমর ফারুক, সানাউল্লাহ প্রমুখ। জাতীয় ছাত্র সমাজের শরীফ উদ্দিন, নয়ন, সাইফুল ইসলাম প্রমুখ। বিজয় দিবসের এই বিশাল বিজয় র্যালীতে নেতা কর্মীদের হাতে প্ল্যাকার্ড, ফেস্টুন, ব্যানার দেখা যায়। বরুড়ায় অনেকের মতে, এটিই বরুড়ার স্মরণ কালের বিজয় র্যালী।
পরে বিভিন্ন স্কুল, কলেজের কুচকাওয়াজ, ডিসপ্লে, খেলাধুলা ও বিকালে উপজেলা অফিসার ও সুধী সমাবেসদের মধ্যে রসি টানাটানি ও প্রীতি ফুটবল ম্যাচ অনুষ্ঠিত হয়। এ বছর মহিলাদের জন্য আলাদাভাবে খেলাধুলার ব্যবস্থা রাখা ছিল। বিভিন্ন পেশাজীবি সংগঠনের শীর্ষ স্থানীয় নেতৃবৃন্দ ওই সমাপনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
১৯৭১ সালের এ মাসেই এক সাগর রক্তের বিনিময়ে মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে বীর বাঙ্গালীর মহান এ বিজয় অর্জনের এবার ৪৬ বছর। এ উপলে উপজেলা প্রশাসন ও সরকারী-বেসরকারী প্রতিষ্ঠানগুলো নানাহ কর্মসূচী পালনের মাধ্যমে বিজয় দিবসটি হয়ে উঠে সার্বজনীন লোকজনের উপস্থিতিতে অনেকটাই প্রানবন্ত আমাদের পরম গর্ব ও অনাবিল অহংকারের দিনে। সন্ধ্যায় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সমাপ্তি হয়।